• অপরাধ ও দুর্নীতি
  • লিড নিউজ

বগুড়ায় মায়ের শ্রমের ন্যায্যমূল্য চাইতে গিয়ে ছেলে খুন: গ্রেফতার ২

  • অপরাধ ও দুর্নীতি
  • লিড নিউজ
  • ১০ জুন, ২০২২ ২২:৩২:৫৩

ছবিঃ সিএনআই

সঞ্জু রায়,বগুড়া: বগুড়ার দুপচাঁচিয়ায় চাতাল মালিকের সাথে বেতন নিয়ে দ্বন্দ্বে নারী শ্রমিক জোসনা বেগমের ছেলে জুয়েলকে পিটিয়ে হত্যার মামলায় দুই আসামীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন- উপজেলার ছোট পাইকপাড়া গ্রামের মৃত আয়েজ উদ্দিনের আফছার আলী (৬৫) ও ধারশুন গ্রামের সালামতের ছেলে সাদেকুল ইসলাম ভোলা(২৫)।শুক্রবার দুপুরে তাদের জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। এর আগে, শুক্রবারই ভোরেই তাদের নিজ নিজ বাড়ি থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

পুলিশ ও মামলা সূত্রে জানা যায়, গত চার বছর যাবত উপজেলার পাইকপাড়া এলাকায় আক্কাছ আলীর ধানের চাতালে  শ্রমিকের কাজ করে আসছিল জোসনা বেগম। প্রথম দিকে মাসিক ৪ হাজার টাকা বেতন দিলেও পরবর্তীতে তাকে ৩ হাজার টাকা দেয়া হত। কিন্তু গত মাসে ৩ হাজার টাকা না দিয়ে তাকে ২ হাজর ৫০০ টাকা দেয়া হয়।

গত শনিবার (৪ জুন) টাকা কম দেওয়ায় ঘটনায় চাতাল মালিক আক্কাছ আলীর সাথে ওই নারীর ছেলে জুয়েলের কথা কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে জুয়েলকে তিনি ইউক্যালিটাস গাছের ডাল দিয়ে মারপিট করে। জুয়েল প্রতিবাদ করলে অভিযুক্তরা দৌঁড়ে এসে তাদের হাতে থাকা লোহার রড, কাঠের বাটাম, বাঁশের লাঠিসহ দেশীয় অস্ত্র দিয়ে জুয়েলকে হত্যার উদ্দেশ্যে এলোপাথারীভাবে মারপিট করে গুরুত্বর জখম করেন। ছেলের ডাকচিৎকার শুনে মা জোসনা বেগম এগিয়ে এলে তাকেও মারপিট করা হয়। সেই সাথে অভিযুক্তরা তাকে বলেন ‘কোনো হাসপাতালে চিকিৎসা করানো যাবেনা, যদি করা হয় তাহলে তার ছেলে (জুয়েল)কে মেরে লাশ গুম করে ফেলা হবে।
মা জোসনা নিরূপায় হয়ে অসুস্থ ছেলেকে নিয়ে উপজেলার ছোট পাইকপাড়া গ্রামে তার ভাই সোহেলের বাসায় আশ্রয় নেন। পরের দিন প্রাণভয়ে সেখান থেকে বগুড়ার কাহালুর দিপুইল গ্রামে তার ভাগনীর বাড়িতে আশ্রয় নেন।

বৃহস্পতিবার দুপুর আড়াই টার দিকে সেখানে জুয়েল মারা যান। এ ঘটনায় বাদী হয়ে নিহত জুয়েলের মা থানায় ৬ জনের বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা করেন।  বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে মামলাটি করা হয়।
দুপচাঁচিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কালাম আজাদ জানান, নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। শুক্রবার ভোরে আসামি আফছার আলী ও সাদেকুল ইসলামের নিজ বাড়ি থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। আসামিদের প্রত্যেকের সাতদিনের করে রিমান্ড চাওয়া হয়েছে। অন্য আসামিদের ধরতে অভিযান চলছে।

মন্তব্য ( ০)





  • company_logo